খাইরুন নেছা রিপা

গল্প প্রেমী

×

করোনা ভাইরাস কী, কেন এবং লক্ষণ জেনে নিন

করোনা ভাইরাস বর্তমানে বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক । বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২০০০ জনের কাছাকাছি, এর মধ্যে বেশিরভাগই চীনের মানুষ। চীন থেকেই সর্বপ্রথম এই ভাইরাসের খবর জানা যায়। থাইল্যান্ড, জাপান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো অন্যান্য দেশ থেকেও এই ভাইরাস সংক্রমণের ঘটনা জানা গেছে। তাই, বিশ্বব্যাপী মানুষের মধ্যে এই মারণ ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ছরিয়ে পরছে।

করো না ভাইরাস কী ?

করোনা ভাইরাস বলতে এক গোত্রের অনেকগুলো ভাইরাসকে বোঝায়, যা মূলত প্রাণীদের মধ্যে পাওয়া যায়। বার্ড ফ্লু তথা সার্স ভাইরাসও এই গোত্রের। হিউম্যান করোনা ভাইরাস এক ধরনের জুনোটিক রোগ এবং এই সংক্রমণটি প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

এভাইরাসটি সর্বপ্রথম খুজে পাওয় যায় ১৯৬০ সালে একজন রোগীর মধ্যে, যিনি সর্দিতে ভুগছিলেন। এ ভাইরাসটির আকৃতি মুকুটের মতো দখতে।

হিউম্যান করোনা ভাইরাস ছড়ানোর কারণ

হিউম্যান করোনা ভাইরাস সাধারণত একজন ব্যক্তির শ্বাসনালীকে প্রভাবিত করে। শ্বাসনালীতে সংক্রমিত তরল কাশি বা হাঁচির সময় এক ব্যক্তির থেকে আরেক ব্যক্তির মধ্যে চলে যায়। এছাড়াও, যদি সংক্রামিত ব্যক্তি মুখ না ঢেকে খোলা বাতাসে হাঁচি বা কাশি দেয়, তাহলে ভাইরাসটি বাতাসে ছড়িয়ে পড়ে। ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার অন্যান্য কারণ হল, সংক্রামিত ব্যক্তির সঙ্গে হ্যান্ডশেক, সংক্রামিত কোনও বস্তুর সাথে নাক বা মুখ একসঙ্গে স্পর্শ করা এবং বিরল ক্ষেত্রে, রোগীর মলমূত্র স্পর্শ করা।

হিউম্যান করোনা ভাইরাস লক্ষন

NL63 এবং 229E, HKU1 এবং OC43-এর কারণে ফ্লু-এর মতো লক্ষণ দেখা দেয় যা, হালকা থেকে মাঝারি আকার ধারণ করে। অন্যদিকে, মার্স এবং সার্স মারাত্মক লক্ষণ সৃষ্টি করে। এর পূর্ববর্তী লক্ষণগুলি হল –

ক) সর্দি

খ) গলা ব্যথা

গ) কাশি

ঘ) মাথা ব্যাথা

ঙ) জ্বর

চ) হাঁচি

ছ) অবসাদ

জ) শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া

Related Post

//ofgogoatan.com/afu.php?zoneid=3060777