খাইরুন নেছা রিপা

গল্প প্রেমী

×

গর্ভাবস্থায় ছোলা খাওয়ার উপকারিতা

প্রত্যেক গর্ভবতী মায়েরই স্বাস্থ সচেন হওয়া প্রয়োজন। এ সময় তোদের ডায়েট অনুযায়ী চলা একান্ত জরুরী। কারন তাদের দেহে এ সময় প্রচুর ভিটামিন ও খনিজ প্রয়োজন।

শরীরের প্রয়োজনিয় পুস্টি আপনার গর্ভের অনাগতকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করবে।অতএব পুস্টিকর খাবার মা ও শিশু উভয়ের জন্যই প্রয়োজন।

ডায়েটে ছোলা

ছোলা একটি অতি পুস্টিকর খাবার। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, কার্বোহাইড্রেট এবং ফোলেট জাতীয় পুস্টি উপাদান। এপুস্টি উপাদান গুলোর করণে, গর্ভবতী মহিলাদের জন্য অতি প্রস্তাবিত খাবার।

গর্ভাবস্থায় ছোলার স্বাস্থ্য উপকারিতা

১) রক্ত সল্পতা প্রতিরোধ করে এ অবস্থায় প্রায় মহিলারা রক্ত সল্পতায় ভোগে। গর্ভাবস্থায়, মহিলাদের বাচ্চাকে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য অতিরিক্ত আয়রোন এর প্রয়োজন হয়। ছোলা হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করে এবং প্রিমিচিওর জন্মের ঝুঁকিও হ্রাস করে।

গর্ভকালীন ডায়াবেটিস পরিচালনা করে

ছোলায় থাকে প্রচুর পরিমানে ফাইবার যা গর্ভকালীন মায়ের দেহে শর্করার পরিমাণ বাড়িয়ে, ইন্সুলিনের প্রভাব থেকে মা ও শিশুকে রক্ষা করে। যা মা ও ‍শিশুর জন্য অনেক ক্ষতির কারণ। তাই গর্ভাবস্থায় ছোলার কোন বিক্লপ নেই।

নিউরাল টিউব সমস্যাগুলো প্রতিরোধ করে

ছোলায় থাকে প্রচুর ফোলেট যা গর্ভাবস্থায় মায়ের রক্ত কনিকা তৈরি এবং বাচ্চার বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এটি ভ্রূণের নিউরাল টিউব সমস্যার ঝুঁকি কমায়।

কোষ্টকাঠিন্য প্রতিরোধ করে

ফাইবার গর্ভবতি মায়েদের কোষ্টকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। আর এই ফাইবারের ভাল উৎস ছোলা।

শিশুদের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে

ছোলার প্রটিন যা একটি শিশুর বৃদ্ধিদে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

গর্ভাবস্থায় ছোলা খাওয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

১) ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হলে ছোলা খাওয়া অনুচিত।

২) আপনার যদি ছোলায় অ্যালার্জি থাকে তাহলে, ছোলা আপনার জন্য নয়।

৩) গর্ভবস্থায় নিয়মিত ছোলা খাওয়া পেটখারাপ এর কারণ হতে পারে।

যে ভাবে খাবেন

১) ছোলাগুলো ভালভাবে ধুয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন, তার পর সেগুলো রান্না করে খাবেন ।

২) সিদ্ধ ছোলা শাকসবজির সাথে হতে পারে আপনার স্বাস্থকর স্যালাড।

Related Post

//graizoah.com/afu.php?zoneid=3060777